ব্রেকিং নিউজ

কাকে দান দেওয়া উচিৎ? কোথায় প্রদত্ত দান অত্যন্ত ফলপ্রদ হয়?

কাকে দান দেওয়া উচিৎ? কোথায় প্রদত্ত দান অত্যন্ত ফলপ্রদ হয়?

ইলা মুৎসুদ্দী

1

 

কোশলরাজ প্রসেনজিৎ ভগবানকে জিজ্ঞেস করলেন  ভদন্ত, কাকে দান দেওয়া উচিৎ?

ভগবান- যার প্রতি চিত্ত প্রসন্ন হয়। রাজা- ভদন্ত, কোথায় প্রদত্ত দান অত্যন্ত ফলপ্রদ হয়?

ভগবান মহারাজ, এ প্রশ্ন দুটি বিভিন্ন। শীলবান ব্যক্তিকে প্রদত্ত দান মহাফলপ্রসূ হয়, দুঃশীল ব্যক্তিকে প্রদত্ত দান তেমন হয় না। এখানে তাহলে আমি আপনাকেই প্রশ্ন করি, আপনার খুশীমত উত্তর দেবেন। মহারাজ, ধরুন এখানে আপনার যুদ্ধ প্রত্যুপস্থিত হয়, সংগ্রাম বাধে; তখন (রণপ্রশিক্ষণে) অশিক্ষিত অকৃতহস্ত রণকৌশলে অপরিচিত ধনুবির্দ্যায় অনিপুণ ভীরু কম্পমান ত্রস্ত পলায়নপর ক্ষত্রিয় কুমার আসে, আপনি কি তাকে পোষণ করবেন? সেরকম লোক দিয়ে আপনার প্রয়োজন সিদ্ধ হবে কি?

রাজা প্রসেনজিৎ- না, ভদন্ত, আমি সে ব্যক্তিকে পোষণ করব না, সে রকম ব্যক্তি দিয়ে আমার প্রয়োজন সিদ্ধ হবে না।

ভগবান- যদি ব্রাহ্মণ কুমার …. বৈশ্য কুমার …. শূদ্রকুমার…।

ভগবান- যদি শিক্ষিত কৃতহস্ত রণকুশল নিপুণ ধনুর্ধর নির্ভীক সাহসী অপলায়মান ক্ষত্রিয় কুমার আসে, আপনি কি তাকে পোষণ করবেন? তাদৃশ ব্যক্তিকে দিয়ে আপনার প্রয়োজন সিদ্ধ হবে কি?

রাজা প্রসেনজিৎ- হাঁ, ভদন্ত, তাকে আমি পোষণ করব, তাদৃশ ব্যক্তিতে আমার কাজ হবে।

…. যদি ব্রাহ্মণ কুমার …. বৈশ্য কুমার …. শূদ্র কুমার …. প্রয়োজন সিদ্ধ হবে।

ভগাবন- মহারাজ, তেমনি যে কোন কুল বা বর্ণ থেকে গৃহত্যাগ করে প্রব্রজিত হয় এবং সে পঞ্চাঙ্গহীন ও পঞ্চাঙ্গ সমন্বিত হয়, তাকে প্রদত্ত দানের ফল মহৎ হয়।

কোন্ পঞ্চাঙ্গ তার বিগত বা পরিত্যক্ত? কামাসক্তি, দ্বেষ, জড়তা, ঔদ্ধত্য-কৌকৃত্য ও সংশয় পরিত্যক্ত হয়। কোন পঞ্চ অঙ্গে সমন্বিত? অশৈক্ষ্য (শিক্ষাতীত) অর্হতের শীলসমূহ, সমাধি, প্রজ্ঞান, বিমুক্তি এবং বিমুক্তি জ্ঞানদর্শন ও পঞ্চ অঙ্গে সমন্বিত। এভাবে পঞ্চাঙ্গহীন ও পঞ্চাঙ্গযুক্ত ব্যক্তিকে প্রদত্ত দানের ফল মহৎ হয়।

এ উক্তির পর ভগবান সুগত পুনশ্চ বলেন- যে লোকের মধ্যে আছে নরশিল্প বা ধনুর্বিদ্যা, বল ও বীর্য থাকেই যুদ্ধার্থী রাজা পোষণ করেন, শুধু জাতির কারণে অবীর ব্যক্তিকে নয়। তেমনি শান্তি, পরমভাব এবং গুণসমূহ যাতে প্রতিষ্ঠিত, সে পবিত্রতা সম্পন্ন মেধাবী বা জ্ঞানী নীচকুল জাত ব্যক্তিকেও লোকের পূজা করা উচিত।

মনোরম আশ্রম নির্মাণ করে দেবে এবং সেখানে বহুশ্রুত যতিদের বাসের ব্যবস্থা করবে। অরণ্যে পানসত্র, দুর্গম স্থানে সাঁকো স্থাপন করবে। ঋজুভাবপ্রাপ্ত বা শুদ্ধা ব্যক্তিদের অন্নপান, খাদ্যবস্ত্র ও শয়নাসন প্রসন্ন মনে দান করবে। বিদ্যুৎমালা সমন্বিত শতশিখরযুক্ত গর্জায়মান মেঘ যেমন পৃথিবীতে বর্ষণ করে স্থল ও নিুভূমি পূর্ণ করে, তিমনি শ্রদ্ধাসম্পন্ন শ্রুতিবান ধীর ব্যক্তি ভোজনের ব্যবস্থা করে প্রার্থীদের অন্নপানে তৃপ্ত করে। আমোদিত হয়ে দান ছড়াতে থাকে এবং দাও দাও  বলতে থাকে। তা বর্ত্তমান মেঘের মত গর্জন। সে বিপুল পূণ্যধারা দাতার ওপর বর্ষিত হয়।

সূত্র ঃ সংযুক্ত নিকায় ১ম ও ২য় খন্ড, অনুবাদক-শীলানন্দ ব্রক্ষ্মচারী

সম্মন্ধে ela mutsuddi

এটা ও দেখতে পারেন

খুব সংক্ষেপে মহাসতিপট্ঠান সহায়িকা

একূশটি উপায়ে অরহ্ত্ত্ব লাভের উপায় তথা কর্মস্থান সংযূক্ত গভীর অর্থসংযুক্ত মহাসতিপট্ঠান সূত্তI এখানে একুশটি উপায়ে …

Leave a Reply