ব্রেকিং নিউজ

🧘‍♂️অধ্যাত্ম শীল🧘‍♂️

অধ্যাত্ম জ্ঞান বা প্রজ্ঞা লাভার্থে যেসব শীলপালন, সেসব শীলের নাম অধ্যাত্ম শীল❤️❤️❤️ অধ্যাত্মশীল চতুর্বিধ ৷ যথাঃ ক) ইন্দ্রিয় সংবর শীল খ) আজীব পরিশুদ্ধ শীল গ) প্রত্যয় সন্নিশ্রিত শীল ও ঘ) প্রাতিমোক্ষ সংবর শীল।✍️✍️✍️
🌸🌸🌸ক) ইন্দ্রিয় সংবর শীলঃ চক্ষু, কর্ণ, নাসিকা, জিহ্বা, কায় ও মন-এ ছয় ইন্দ্রিয় সংযম। এ ছয় ইন্দ্রিয় পথে যথাক্রমে রূপ, শব্দ, গন্ধ, রস, স্পর্শ ও ধর্ম যোগে যেসব তৃষ্ণা উৎপন্ন হয়ে থাকে, সাধক বা সাধিকা সেসব তৃষ্ণা উদ্ভবের অবকাশ প্রদান করেন না। প্রমাদ বশে উদিত হলেও তা তৎক্ষণাৎ দমন করেন।
💐💐💐খ) আজীব পরিশুদ্ধ শীলঃ আজীব অর্থ জীবিকা । সৎ ভাবে জীবিকার্জনই আজীব পরিশুদ্ধ শীল। সাধক তার জীবিকা আহরণ এমনভাবে করতে থাকেন, যেন সেই জীবিকা তার সাধনার অগ্রগতির সহায়ক হয় এবং যেন কোনরূপ কপটতা ও ছলনার অন্তরালে এ জীবিকা সম্পাদিত না হয় । বিশেষ করে এ জীবিকা আহরণ যেন অল্পেচ্ছা ও সন্তুষ্টির, মৈত্রী ও করুণার অনুকূলে হয়।
🌹🌹🌹গ) প্রত্যয় সনিশ্রিত শীলঃ সেই পরিশুদ্ধ আজীব লব্ধ অপরিহার্য দ্রব্যাদির ব্যবহার এমনভাবে করতে হবে, তা যেন সাধক জীবনের প্রগতির অনুকূল হয় । ভিক্ষুর পক্ষে পরিধেয় চীবর, আহার্য দ্রব্য, আবাসস্থান ও ওষধ পত্র-এ চতুর্বিধ বস্তু ভৌতিক দেহকে কার্যক্ষম রাখবার অপরিহার্য হেতু বা কারণ বলে এদের প্রত্যয় বলা হয়েছে । এ সবের প্রতি লোভ সর্বতোভাবে পরিত্যজ্য ।
🌺🌺🌺ঘ) প্রাতিমোক্ষ সংবর শীলঃ বিনয় পিটকের অন্তর্গত “ভিক্ষু প্রাতিমোক্ষ গ্রন্থে দুশ্চরিতাদি সংবরণ ও শিষ্টাচারাদি পালন সম্বন্ধে যেসব বিধি-বিধান (২২৭ শীল) লিপিবদ্ধ আছে, তদনুযায়ী স্বভাব গঠন করেন। এ বিধিগুলোই প্রাতিমোক্ষ সংবর শীল। সংক্ষেপে বলতে গেলে আচার-গোচর সম্পন্ন হওয়া এবং অনুমাত্র দোষেও ভয়দর্শী হতে হয় । আচার কি? গুরুজনের প্রতি গারবতা, সম্মান, লজ্জা ও ভয়শীলতা, পোষাকের পারিপাট্য, গমনাগমনে ও হস্ত-পদ সঞ্চালনে প্রসাদজনক সংযমতা । চার হাত দেখা যায় মত হাঁটা, ঈর্যাপথ সম্পন্ন অর্থাৎ দাড়ান, গমন, উপবেশন ও শয়নে স্মৃতি সম্প্রজ্ঞান অনুশীলন করা, অল্প ইচ্ছক এবং অল্পে তুষ্ট হওয়া । গোচর কি? এটি ত্রিবিধ-উপনিশ্রয় গোচর, আরক্ষা গোচর ও উপনিবদ্ধ গোচর। উপনিশ্রয় গোচরঃ দশবিধ গুণসম্পন্ন কল্যাণ মিত্রের সান্নিধ্যে অবস্থান, যার উপনিশ্রয়ে অশ্রুত বিষয় শ্রবণ করা যায়, শ্রুত বিষয়ে পরিশুদ্ধি লাভ হয়, সন্দেহ ভঞ্জন করা যায়, দৃষ্টি খজু হয়, চিত্তে প্রসাদ বা স্বচ্ছতা উৎপত্তি হয়, শ্রদ্ধা বর্ধিত হয় এবং শীল, শ্রুতি, ত্যাগ ও প্রজ্ঞার অভিবৃদ্ধি হয় । আরক্ষা গোচরঃ গমনাগমনে নতচক্ষু হয়ে দিক-বিদিক না তাকিয়ে সুসংযত বিচরণ । উপনিবদ্ধ গোচরঃ কায়ানুদর্শন, বেদনানুদর্শন, চিত্তানুদর্শন ও ধর্মানুদর্শন-এ চার স্থৃতি প্রস্থানে চিত্তকে নিবদ্ধ বা নিয়োজিত করে বিচরণ । এরূপ বিচরণে শীল সহজে প্রতিপালিত ও সুসম্পাদিত হয়।
গৃহীর জীবন বিঘ্নসংকুল রজঃপথ, প্রব্রজিত জীবন উন্মুক্ত আকাশতুল্য শান্তির পথ। প্রব্রজিত না হলেও ভাবনাকালে গৃহী সাধকের চিত্ত প্রব্রজিত হয়ে যায় এবং সাথে সাথে এ চারটি প্রধান ও উচ্চতর শীল তার পালিত হয়ে থাকে । এ চতুর্বিধ পরিশুদ্ধ শীল পালন করাই শীল বিশুদ্ধি।🙏🙏🙏জগতের সকল প্রানী সুখী হউক কিন্তু অসভ্য না হউক🙏🙏🙏

সম্মন্ধে SNEHASHIS Priya Barua

এটা ও দেখতে পারেন

মেডিটেশান এবং আপনার ব্রেইন

Leave a Reply

Translate »