ব্রেকিং নিউজ

✍️✍️✍️কঠিন হলো কি ১ম পর্ব 🌺🌺🌺

ভাবতে অবাক লাগে – বিদর্শন তো দুরের কথা – আমরা কি ভাবতে পারি? আমরা কি দেখতে পারি নিজেদের? সাত সমুদ্র ১৩ নদীর ওপার থেকে চোখের জল বাধ মানে না। ধর্ম করবো না ভাই বিহার বিহার খেলবো, অরহত হবো না ভাই ছেলের নাম রাখবো – তাই কি হচ্ছে? 🌼🌼🌼
🕵️‍♀️🕵️‍♀️🕵️‍♀️২০১৯ এর কঠিন চীবর দান প্রায় শেষ পর্যায়ে বেশীর ভাগ বিহারে দান সমাপ্ত বলবো না বলবো অনুষ্ঠান সমাপ্ত। কেন পড়ে দেখুন – অন্যান্য বৃত্তান্ত
✏️✏️✏️কেন বলছি অনুষ্ঠান সমাপ্ত – কারন অনুষ্ঠান সমাপ্ত হলে আনন্দ অনুভব করবেন আর দান সমাপ্ত হলে প্রীতি অনুভব করবেন আনন্দ আর প্রীতি এর মধ্যে যে ফারাক আছে তাতে বোঝা যায় কি করেছি🍁🍁🍁
💐💐💐কঠিন চীবর দান হতে হলে কঠিন সমাপ্ত হতে হয় কিন্তু দুর্ভাগ্য বেশীর ভাগ অনুষ্ঠানে কঠিন চীবর দানের ব্যাখ্যায় শুনেছি কঠীন চীবর দানের মহাফলের কথা কিন্তু সবিস্তারে কোথাও তেমন শোনা যায়নি কঠিনের ব্যাখা – তাতে তাদের উদ্দেশ্য বলে দেয়। যদি তাই হয় তবে কঠিন হলো কি?
💗💗💗গরীব অসহায়দের সাহায্য করার জন্য নিত্য নিমিত্ত ফান্ড আর সংঘটন আর গুনীজনদের সম্মাননা দিয়ে আসছি কিন্তু সেই মহান ভিক্ষুসংঘের পিতা-মাতা – সংঘ মাতা-পিতা যখন গরীব আসহায় তাদের সাহায্যার্থে কি আমাদের সে রকম কোন কিছু ২৫০০ উর্ধো বছর কেটে গেলে ও হয়েছে কিংবা কঠিন চীবরদানের মতো অনুষ্ঠানে তাদের নিদেন পক্ষে স্বীকৃতি কিংবা সম্মাননা দেবার ব্যবস্থা হয়েছে? জানা কথা -সম্রাট অশোক ও যতক্ষন পর্যন্ত পূত্র এবং কন্যা দান করতে পারেন নাই ততক্ষন শাসনের উত্তরাধীকারী হতে পারেন নাই। আমরা সকলে বুদ্ধ শাসন চীরজীবি হউক বলে লম্ফ ঝম্ফ করি, বাম-ডানের কথা বলি, পদ্য আর গদ্য লিখি কিন্তু বুদ্ধ শাসনের উত্তরাধিকারীদের, সংঘ মাতাপিতাদের সম্মাননা আর শ্রদ্ধ্যাদানের কথা বললে আমাদের খুজে পাওয়া যায় না কেন অথচ গুনীজন সংবর্ধনার অভাব নেই।
🍀🍀🍀হাজার উর্ধো বিহারের একটা বড় অংশের বিহারে কঠিন চীবর দানানুষ্ঠানের আয়োজনি সম্ভব যেখানে হলো না – সেখানে পরিস্থিতি এরকম প্রতিবেশি না খেয়ে মারা যায় অথচ আমি থাকি বিলাসবহুল আয়োজনে – কোথায় গেলো – মৈত্রী, মুদিতা, করুণা আর উপেক্ষা – তা ছাড়া কঠিন চীবর দান হতে পারে কি? তবু ও প্রকাশ্যে আর ও বিহার গড়ার আহবান আসে – (একি গ্রামে ৭/৮টি) তবু ও তৃষ্ণা মেটে না, ভাইয়েভাইয়ে বিবাদ মিটিয়ে না দিয়ে আর ও একটা বিহার গড়ো যাতে সে বিবাদ আবহমান কাল ধরে প্রবর্তিত থাকে – নাম তার সংস্কৃতি ধরে রাখা।
🤦‍♀️🤦‍♀️🤦‍♀️অনেকগুলো কঠিন চীবর দান দেখার সোভাগ্য হলো, নজরে পড়লো – উক্ত ফলস্বরুপ উপাসক-উপাসিকাদের মধ্যে উপাসিকাদের সংখ্যা বেশি – আবার উপাসিকাদের মধ্যে ও শুধু মাত্র বাড়ির বৌ আর বয়োবৃদ্ধদের দেখা গেছে। কোথায় হারিয়ে গেলো আমাদের তরুন-তরুনি, শিশু, কিশোর-কিশোরিরা? কোথায় হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের পুরুষেরা?🤦‍♂️🤦‍♂️🤦‍♂️কঠিন চীবর দানে যখন ধর্ম দেশনা চলছে – তখন দেখা যায় উপাসক-উপাসিকাদের কথা না হয় বাদ দিলাম ভিক্ষু সংঘের পূজনিয় ভিক্ষুগন তাদের ট্যাবলেট কিংবা ফোন নিয়ে ব্যস্ত – তাদের কি ধর্মদেশনা শোনার কথা নয় নাকি তারা সবাই অরহত হয়ে গেছেন- নাকি সেটাই বিনয়? এ প্রসঙ্গে তাদের বলবো বেশি না পারেন ছয় বিশোধন সুত্রটা অন্তত পড়েন। কোথায় হারিয়ে যাচ্ছে বিনয়?
💂‍♀️💂‍♀️💂‍♀️বাংলাদেশ বৌদ্ধ ভিক্ষু মহাসভা কিংবা বাংলাদেশ সংঘরাজ ভিক্ষু মহাসভা কিংবা বাংলাদেশ পার্বত্য ভিক্ষু সংঘ কিংবা উপাসক উপাসিকা সংঘ প্রথমে সব নিয়ে ছিলো একটা সংঘ (একতা) আজ সংঘ বলতে সাধারনত বুঝি ভিক্ষু সংঘ – সংঘ থাকলে সীমা ঘর থাকার কথা বিচার-আচার থাকার কথা, ক্ষমা প্রার্থনা থাকার কথা আছে কি? না থাকলে আমাদের প্রবারণা এবং কঠিন চীবর দান হলো কি? কয়জনার হয়েছে আর কজনার মহাপাপ হয়েছে? সবাইকে দেখি প্রবারণার শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করতে কিন্তু ক্ষমা প্রার্থনা কি হারিয়ে গেল – তাহলে প্রবারণা কি লুপ্ত হতে যাচ্ছে!!!!!
🌹🌹🌹তিন মাস বর্ষাবাস শেষে নমুনাঃ যেখানে ইসলামপুর, রাঙ্গুনিয়ার ধর্মকুয়া সার্বজনিন বিহারের মতো ভিক্ষুকে কঠিন চীবর দানের পরিবর্তে মিথ্যা বানোয়াট বদনাম দিয়ে বিহার ছাড়া করা হয় এবং অনেকের কাছে থেকে প্রকাশ্যে কঠিন চীবরের পোষ্টার ছাপিয়ে ফটাকবাজী করে টাকা আত্নসাত করা হয় আর সে সমাজ নিশ্চুপ থাকে সে সমাজের কঠিন হয় কি তবে কঠিন চীবর দান হয় কি?
🙏🙏🙏ভেবে দেখবেন – অনুরোধে ২য় পর্ব হতে পারে তার আগ পর্যন্ত যদি অন্তত মনে করেন উক্ত বিশয়গুলো নিয়ে আমাদের সকলের ভাবা প্রয়োজন সে ক্ষেত্রে শেয়ার করে সবাইকে জানার সুযোগ করে দিয়ে ধর্ম দান করুন। একটা ভালো মানুষ হউন- মনুষত্ব বিকাশের ধর্ম – জগতের সকল প্রানী সুখী হউক🙏🙏🙏

সম্মন্ধে SNEHASHIS Priya Barua

এটা ও দেখতে পারেন

মেডিটেশান এবং আপনার ব্রেইন

Leave a Reply