ব্রেকিং নিউজ

বৌদ্ধ্বদের ধর্মীয় পতাকায় ছয়টি রং কেন?

এই ছয় রংকে ছয়রশ্মি ও বলে। ছয় রশ্মি হচ্ছে যথা, ১) নীল, ২) পীত বা হলুদ, ৩) লোহিত বা লাল, ৪) ওদাত বা শ্বেত বর্ণ, ৫) মুঞ্জিষ্ঠা বা কমলা, ৬) প্রভাস্বর।

১) নীলঃ মহাকারুণিক বুদ্ধের কেশ রাশি ও চক্ষুদ্বয়ের নীলবর্ণ স্থান হতে নীল রশ্মি বিচ্ছুরিত হয়েছিল। অনন্ত আকাশের নীল বর্ণ সদৃশ সর্ব প্রাণীর প্রতি সীমাহীন মৈত্রী। ইহা তথাগত বুদ্ধের বিমুক্তির চিহ্ন। এই নীল রশ্মি মৈত্রী পারমী।

২) পীত বা হলুদঃ সম্যক সম্বুদ্ধের গেরুয়া চীবর হতে দ্বিতীয় পীত রশ্মি বিচ্ছুরিত হয়েছিল। ইহা ত্যাগ বা সাধুতা ও বৈরাগ্যের চিহ্ন। এই রশ্মির অর্থ নৈস্ক্রম্য পারমী।

৩) লোহিত বা লালঃ তৃতীয় জ্যোতি বুদ্ধের ত্বক হতে বিচ্ছুরিত হয়েছিল। বুদ্ধত্ব লাভের জন্য জন্ম জন্মান্তরের তেজবলে আপন জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। কোন সময় তেজচ্যুত হননি। এর অর্থ তেজবান, ধৈর্য্য ও বীরত্বপূর্ণ গুণ। এই লোহিত বর্ণ বীর্য্য পারমী।

৪) ওদাত বা শ্বেত বর্ণঃ চতুর্থ জ্যোতি বা শ্বেত বর্ণ সম্বুদ্ধের ৪০টি শ্বেতবর্ণ দন্তরাজি, চক্ষুদ্বয়ের শ্বেতস্থান হতে এই রশ্মি প্রকাশিত হয়েছিল। এর অর্থ সরলতা ও উদারতা যা দান পারমীর চিহ্ন।

৫) মুঞ্জিষ্ঠা বা কমলাঃ পঞ্চম জ্যোতি মুঞ্জিষ্ঠা (ঈষৎ লাল বা পাতলা লাল মিশ্রিত হলদে রঙ) ভগবান বুদ্ধের শরীর ও চীবরের সমন্মিত প্রতীক এর অর্থ সাম্য, অহিংসা ও মুক্তি মার্গে উপনীত হবার চিহ্ন। ইহা ক্ষান্তি পারমী।

৬) প্রভাস্বরঃ ইহা উপরোক্ত সমস্ত রশ্মির মিশ্রিত জ্যোতি। উপরোক্ত পাঁচ বর্ণের উজ্বল আলোর পর পর পাঁচ বর্ণ যুক্ত রঙ উপর থেকে নীচের দিকে যথাক্রমে নীল, পীত, লোহিত, শ্বেত, কমলা সজ্জিত। ইহা মহামনব বুদ্ধের ৩২ প্রকার মহাপুরুষ লক্ষণের চিহ্ন।

এই ষড়রশ্মি দশ পারমী, দশ উপপারমী ও দশ পরমার্থ পারমী পূর্ণ সম্যক সম্বুদ্ধের প্রজ্ঞা পারমী

সম্মন্ধে SNEHASHIS Priya Barua

এটা ও দেখতে পারেন

পরিস্কার বাংলায়ঃ জাতের নামে বজ্জাতি

Leave a Reply